Home
Why Should Muslims Participate in Elections? PDF Print E-mail
Written by Dr Firoz Mahboob Kamal   
Wednesday, 20 June 2018 20:48

Power of Vote and the old debate

A debate on election has divided the already divided Muslim community in the UK. Some groups have labelled it haram - a divine prohibition. They have proclaimed fatwas that any participation in elections is shirk. Their central point is based on the argument that Allah (SWT) is the only lawmaker, and so Muslims cannot take part in forming a parliament that is not based on his laws. To them, it is not only haram in a non-Muslim country like UK, but also in any notionally Muslim country like Bangladesh, Pakistan, Malaysia, Turkey, Indonesia and others. So the question arises, should the Muslims survive as mere observers of politics, as is the norm in many autocratic Muslim countries like Saudi Arabia, Syria, Jordan, Kuwait, Qatar and others? Ironically, most of the people propagating this fatwa, are born in those middle-east countries and are more in tune with autocratic legacies. Rather, the ulamas in Bangladesh, Pakistan, Malaysia, Turkey, Indonesia, India, Sudan and Algeria are not only participating in elections, but also are taking part in forming governments.

 

Read more...
 
Power-addict Hasina & the Death of Democracy in Bangladesh PDF Print E-mail
Written by Dr Firoz Mahboob Kamal   
Monday, 11 June 2018 19:34

The rule of the power-addict & the calamity

Addiction to power is far more catastrophic than addiction to drugs. A drug-addict slowly kills himself; but a power-addict autocrat kills millions. They are more dreadful than any vile animal or bugs on earth. No Tsunami, epidemic or earthquake caused so such tragedies to the mankind as were inflicted by these power-addicts. The annals of history is full of their brutalities. They carry out every cruelties to stay in power. Secrete killing, extrajudicial killing, mass killing and abolition of human rights are the awful expression of such addiction. So, millions had to die in Germany, Russia and China because of the power-addict rulers like Adolf Hitler, Joseph Stalin and Mao Zedong. They do not give the right of survival to their opponents, let alone give any political space. Only those who submit to their ideological cum political enslavement, enjoy some breathing space in their domain.

Last Updated on Monday, 11 June 2018 19:45
Read more...
 
বাংলাদেশে মৃত গণতন্ত্র এবং বিজয় স্বৈরাচারি অসভ্যতার PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Sunday, 20 May 2018 00:24

যে অসভ্যতা স্বৈরাচারে

স্বৈরাচার কোন কালেই দেশ শাসনের সভ্য রীতি ছিল না। ধর্মের নামে কোটি কোটি মানুষের জীবনে মুর্তিপূজা, শাপপূজা, গরুপূজা, লিঙ্গ পূজার ন্যায় সনাতন অপধর্ম ও অসভ্যতা যেমন এখনো বেঁচে আছে, তেমনি বহুদেশে প্রকট ভাবে বেঁচে আছে স্বৈরাচারের নগ্ন অসভ্যতাও। বাংলাদেশ তেমনি এক স্বৈরাচার কবলিত দেশ। কদর্য অসভ্যতার প্রকাশ শুধু পোষাক-পরিচ্ছদ, শিক্ষা-সংস্কৃতি, ধর্মপালন ও যৌন জীবনে থাকে না, থাকে রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রেও। বস্তুত রাজনীতির অঙ্গণে সে আদিম অসভ্যতাটি হলো স্বৈরাচার। অন্যান্য অসভ্যতার তুলনায় স্বৈরাচারি অসভ্যতার নাশকতাটি ভয়াবহ ও ব্যাপক। পতিতালয়ের অসভ্যতা বাইরের অন্যদের সভ্য রূপে বেড়ে উঠার অধিকারকে কেড়ে নেয় না। কিন্তু স্বৈরাচারের অসভ্যতায় নিজ নিজ ধর্মীয় বিশ্বাস ও রাজনৈতীক মতবাদ নিয়ে বেড়ে উঠার স্বাধীনতাই শুধু বিলুপ্ত হয় না, কেড়ে নেয়া হয় প্রতিপক্ষের প্রাণে বাঁচার স্বাধীনতা টুকুও। তখন রাষ্ট্র ও জনগণের ভাগ্য নির্ধারণের সবটুকু ক্ষেত্র জুড়ে প্রতিষ্ঠা পায় একমাত্র স্বৈরশাসকের দখলদারি। সে অধিকৃত ভূমিতে অন্য কারো স্থান না দেয়াই স্বৈরাচারের রীতি। স্বৈরশাসকের জন্য সে স্থানটি নিরাপদ করতেই অন্যদের নির্মূল করা অপরিহার্য হয়ে পড়ে। স্বৈরাচারি অসভ্যতার ফসল তাই একদলীয় শাসন, গণহত্যা,গণনির্যাতন ও গণনির্মূল।

Last Updated on Sunday, 20 May 2018 00:35
Read more...
 
Israeli Killings in Gaza & the US Support PDF Print E-mail
Written by Dr Firoz Mahboob Kamal   
Monday, 28 May 2018 14:18

The ideological cousins & Israel’s immunity

The world looks dangerously unsafe for the defenseless Muslims. The Muslims of Palestine, Kashmir, Myanmar, Syria, Yemen, Xinjiang and many other parts of the world indeed suffer very badly. The millions of victims of the state-run atrocities can’t see any light of hope even at the distant end of the dark tunnel. How the world can attain any meaningful peace with such a huge number of people living in extreme despair? Palestine was occupied 70 years ago; 5 million of its people still live as refuges in foreign lands with no hope of return. The UN Security Council resolution guarantying their safe return only stays in paper; none of the permanent members talks about its implementation. Those who could stay in occupied Palestine, they indeed live in an open air prison and subject to death at the hands of the Israelis at any time. Till now, the world leaders have proven their total incompetence to deliver any justice to them. Ironically, these leaders try only to contain the symptoms and show little concern to treat the underlying disease.

Last Updated on Thursday, 31 May 2018 17:09
Read more...
 
বাংলাদেশে ভোট-ডাকাতদের নাশকতা ও জনগণের দায়বদ্ধতা PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Sunday, 06 May 2018 13:09

চোর-ডাকাতেরাও যখন নেতা হয়!

প্রতি সমাজে যেমন ভাল মানুষ থাকে, তেমনি ভয়ানক চোর-ডাকাতও থাকে। তেমনি সত্য ধর্মমত যেমন থাকে, তেমনি মিথ্যা অপধর্মও থাকে। তাই শুধু বিষাক্ত কীট ও হিংস্র জন্তু-জানোয়ারদের চিনলে চলে না, সমাজের চোর-ডাকাতদেরও চিনতে হয়। থাকতে হয় মিথ্যা থেকে সত্যকে চেনার সামর্থ্য। মহান আল্লাহতায়ালা শুধু নামায-রোযা দেখেন না। দেখেন ঈমানদারের সে সামর্থ্যটিও। সে সামর্থ্যের মধ্যেই প্রকাশ পায় ব্যক্তির সত্যিকারের ঈমান, জ্ঞান ও প্রজ্ঞা। সে সামর্থ্যটি না থাকলে দুনিয়ার জীবনে সত্যের পক্ষ নেয়া যেমন অসম্ভব, তেমনি অসম্ভব হলো আখেরাতে জান্নাতের ধারে-কাছে যাওয়া। এরাই যুগে যুগে স্বৈরাচারি দুর্বৃত্তদের সকল কুকর্মের সেপাহি হয়। হজ-যাকাত এবং সারা জীবন নামায-রোযা আদায় সত্ত্বেও যারা ইসলামের শত্রুপক্ষের বিজয়ে ভোট দেয়, অর্থ দেয় ও যুদ্ধ করে পরকালে তাদের জন্য যে কতবড় বিপক্ষ অপেক্ষা করছে সেটি বুঝা কি এতই কঠিন। এটি তো মিথ্যার মাঝে সত্যকে চেনার ভয়ানক সামর্থ্যহীনতা। অথচ সে সামর্থ্যটুকু থাকার কারণে এমন অনেকেই জান্নাতে স্থান পাবে যারা জীবনে এক ওয়াক্ত নামায বা এক দিন রোযা আদায়ের সুযোগও পাননি। ফিরাউনের দরবারে হযরত মূসা (আঃ)র সাথে প্রতিদ্বন্দিতা দিতে এসে যে কয়েক জন যাদুকর মূসা (আঃ)র রবের উপর ঈমান এনে শহীদ হয়েছিলেন –তাদের উপর যে মহান আল্লাহতায়ালা কতটা খুশি হয়েছেন সেটি তো পবিত্র কোরআনে বার বার ঘোষিত হয়েছে। সত্যের পক্ষে সাক্ষ্য দিতে তাঁরা ছিলেন নির্ভীক; প্রস্তুত ছিলেন প্রাণ দেয়ার জন্য। যাদের প্রস্তুতিটি জান্নাতের জন্য তাদের কোরবানি তো এরূপ হওয়াই স্বাভাবিক। মানব ইতিহাসের অতি শিক্ষণীয় সে অবিস্মরণীয় ঘটনাটির রিপোটিং করেছেন মহান আল্লাহতায়ালা খোদ নিজে এবং চিরস্থায়ী করেছেন পবিত্র কোরআনে –যাতে মানুষ যুগ যুগ তা থেকে শিক্ষা নিতে পারে।

Last Updated on Sunday, 06 May 2018 16:05
Read more...
 
<< Start < Prev 1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 Next > End >>

Page 1 of 44
Dr Firoz Mahboob Kamal, Powered by Joomla!; Joomla templates by SG web hosting
Copyright © 2018 Dr Firoz Mahboob Kamal. All Rights Reserved.
Joomla! is Free Software released under the GNU/GPL License.